বন্যা নিয়ন্ত্রণে অর্ধেক ব্যয়ই কর্মকর্তাদের গাড়িতে!

0
529

কক্সবাজার টেলিগ্রাম ডেক্সঃ

বাংলাদেশ বিশ্বের মধ্যে অন্যতম প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রবণ দেশ। বন্যাসহ দুর্যোগে প্রতি বছর ৫৭০ মিলিয়ন ডলারের সমপরিমাণে অর্থনীতির ক্ষতি হয়ে থাকে। যা স্থিতিশীল অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের অন্যতম অন্তরায়। এসব প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর। বন্যাসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় জরুরি যোগাযোগ ব্যবস্থা শক্তিশালীকরণে শুরু হচ্ছে প্রকল্প। জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সির (জাইকা) ঋণ সহায়তায় এই প্রকল্পে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য অতিরিক্ত ও দামি গাড়ি কেনার প্রস্তাব করা হয়েছে। সম্প্রতি দ্য ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট ইনহ্যান্সমেন্ট প্রকল্পের ওপর প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভায় এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, প্রকল্পের বন্যাসহ জরুরি প্রাকৃতিক দুর্যোগ পরবর্তী পুনর্বাসন, মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণ খাতে ২৪২ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। পল্লী সড়ক, কালভার্ট, সেচ অবকাঠামো ও ড্রেনেজ কাঠামো পুনরুদ্ধারসহ অন্যান্য মেরামত কাজে এ অর্থ ব্যয় হবে। তবে কর্মকর্তাদের জন্য মোটরগাড়ি ও জলযান কিনতেই বরাদ্দের প্রায় অর্ধেক ১০৭ কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যয়ের প্রস্তাব করেছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতর। এর মধ্যে ১৪টি জিপ ও দুটি ডাবল কেবিন পিক-আপসহ ১৬টি মোটরগাড়ি কিনতে ৪০ কোটি ৬ লাখ টাকা এবং ১২টি রেসকিউ স্পিডবোটসহ ৫৪টি জলযান কিনতে ৬৭ কোটি ১৪ লাখ টাকা চলে যাচ্ছে।
ফলে প্রকল্পের অর্ধেকের বেশি ১২৫ কোটি টাকাই ব্যয় হচ্ছে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য। আর বন্যাদুর্গত এলাকার জনগণের জন্য বরাদ্দ থাকছে মাত্র ১০৭ কোটি টাকা।

তবে পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সচিব) এ এন শামসুদ্দিন আজাদ চৌধুরি বলেন, প্রকল্পের আওতায় এতো গাড়ি কেনা ঠিক হবে না। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের জন্য একটি জিপ ও দুটি ডাবল কেবিন পিক-আপ কেনাই ভালো হবে। এ প্রেক্ষিতে ১৪টি জিপ গাড়ির মধ্যে ১৩টি বাদ দেওয়া সমীচীন হবে। তবে ১২টি স্পিডবোট কেনার সংস্থান ঠিক আছে। এদিকে এ এন শামসুদ্দিন আজাদ চৌধুরি বলেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের অন্য কর্মকর্তাদের গাড়ি দেওয়ার দায়িত্ব আমাদের নয়। আমরা কেন তাদের গাড়ি কেনার অনুমতি দেবো? আমরা শুধু পিডি (প্রকল্প পরিচালক) ও ডিপিডিকে (উপ-প্রকল্প পরিচালক) গাড়ি দেবো। সেজন্যই দুটি গাড়ি কেনার অনুমতি দিয়েছি। ১৬টির মধ্যে বাকি ১৪টি গাড়ি কেনার প্রস্তাব বাদ করে দিয়েছি।