জিয়াউল হক জিয়াকে সংগঠন বিরোধী কার্যকলাপ ও জামাত-বিএনপির সাথে গোপন আতাতের অভিযোগে টেকনাফ মৎস্যজীবীলীগ থেকে বহিষ্কার

0
876

প্রেস বিজ্ঞপ্তি.

অদ্য ০৬-১১-২০১৭ ইং তারিখে বিকাল ২ টার সময় বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবীলীগ টেকনাফ উপজেলা শাখা কর্তৃক আয়োজিত দলের অস্থায়ী কার্যালয়ে এক জরুরী সভার আয়োজন করা হয়।উক্ত জরুরী সভায় প্রধান অথিতি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী মৎস্যজীবীলীগ সংগ্রামী সভাপতি,ডাঃ আবু দাউদ মোহাম্মদ। প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী মৎস্যজীবীলীগ শাখার বিপ্লবী সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা,জসিম উদ্দিন চৌধুরী।সঞ্চলনায় ছিলেন উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা,বাদশা মিয়া।বিশেষ অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের সহ-সভাপতি,হেলাল উদ্দিন ও আব্দুল চাকমা।বক্তব্য রাখেন হোয়াইক্যং মডেল ইউনিয়ন শাখার সভাপতি আব্দুর রহমান,সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীনসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ওর্য়াড পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। উক্ত জরুরী সভায় প্রধান অথিতির বক্তব্যে বলেন,আমরা এখন কঠিন চেলেঞ্জের মুখামুখী ,রাজনৈতিক পথ ও সময় পাড়ি দিয়ে যাচ্ছি।এমন মুহুর্ত্বে আমাদের সিদ্ধ,পরীক্ষিত লোকজন ছাড়া আমরা আগামী দিনে সংগ্রামের পথে এগিয়ে যেতে পারবনা।সুতারাং দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আবারও ক্ষমতায় আনার জন্য বাংলাদেশের মানচিত্রে দক্ষিণ সীমানা সুদুর টেকনাফ উপজেলা হতে আমরা দুর্বার গতিতে সংগ্রামের ডাক দিয়েছি।

এমতাবস্থায় সেই যেই হউক অনুপ্রবেশকারী হিসাবে কাহাকেও দলে ঢুকতে দেওয়া হবে না এবং জামায়াত বা বিএনপির কারো সাথে দলের কোন নেতা,কর্মী কোন প্রকার পৃষ্টপোষকতা এবং সাহার্য্য সহযোগিতা করতেছে তা পত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে এমন সম্পৃক্ততা কারো প্রমাণ মাত্রই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিয়ে দল থেকে বহিষ্কার করা হবে এবং তাকে দলের কুলাংকার হিসাবে আইনের হাতে সোর্পাদ করা হবে।

প্রধান বক্তা বক্তব্যে বলেন,বঙ্গবন্ধুর তনয়া জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে চলমান রাজনীতিকে আরও একধাপ এগিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতিমুলক সকল নেতাকর্মীকে প্রতিটি গ্রাম গঞ্জে নৌকা মার্কা প্রতীকে ভোট প্রদানের জন্য সর্বস্তরের জন সাধারণের প্রতি বিনীত ভাবে অনুরোধ জানানো হয় এবং দলের সকল নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে জামায়াত-বিএনপি ও অনুপ্রবেশকারীদের প্রতি কঠোর নজরদারী রাখার নির্দেশ প্রদান করেন।

উক্ত জরুরী সভায় সবার সম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত গৃহিত হয় যে,আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগ টেকনাফ উপজেলা শাখার বর্তমান টেকনাফ উপজেলা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক(২) রির্পোটার জিয়াউল হক (জিয়া) বর্তমান আওয়ামীলীগ ও আওয়ামী সহযোগী সকল সংগঠনের রাজনীতির উপর কঠোর সমালোচনা করার অপরাধে ও বাংলাদেশ সরকারের নিষেধাজ্ঞা আরোপকৃত সংগঠন জামাত ইসলামী ও পাকিস্তানের দালাল,রাজাকার ও বিএনপির নেতাদের সাথে গোপন আতাত ও সরকার বিরোধী বিভিন্ন কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগেকৃত জামাত নেতা সাংবাদিক তাহের নঈম জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতিকৃতিকে বিকৃত করার অপরাধে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাঈন উদ্দিন খান ও হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মঞ্জুর আলম গত ০৪-১১-২০১৭ ইং তারিখ পুলিশ তাকে আটক করেন।

তার সাথে বিভিন্ন অপকৌশল ও গোপন আতাতের অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় এবং তার বিরুদ্ধে কয়েকটি মামলা থাকায় বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগ টেকনাফ উপজেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক (২) জিয়াউল হক জিয়া কে দল থেকে বহিষ্কার করা হয় এবং এতদসঙ্গে তার প্রাথমিক সদস্যপদও বাতিল বলিয়া গণ্য হয়। এই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর যদি জিয়াউল হক জিয়া সংগঠনের নামধারী কোন প্রশাসন ও ব্যক্তিগণকে পরিচয় প্রদান করিয়া থাকে,তাহলে সকল প্রশাসনের ভাইদের প্রতি অনুরোধ তাকেও আইনের আওয়াতায় আনার জন্য টেকনাফ উপজেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বিনীত ভাবে অনুরোধ জানায়।

জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু,জয় হউক দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনা।