এমপি কমলের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় চাকমারকুল মাদ্রাসার সৃষ্ট বিরোধের অবসান

0
369

হাফেজ এনায়েত উল্লাহ

রামু প্রতিনিধি ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯,

কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ঐতিহ্যবাহি চাকমারকুল আল-জামিয়া আল ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদ্রাসার পরিচালনা নিয়ে বিরোধ শান্তিপুর্ণভাবে নিষ্পত্তি হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১ টায় মাদ্রাসা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত মজলিসে শুরার অধিবেশনে এ বিরোধের অবসান ঘটে।

সভায় জামেয়া ইসলামিয়া পটিয়ার মুহতামিম ও আঞ্জুমানে ইত্তেহাদুল মাদারিস (বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড) এর মহাসচিব আল্লামা আব্দুল হালিম বোখারীকে মাদ্রাসার মুহতামিম এবং মাদ্রাসার বর্তমান মুহতামিম মাওলানা সিরাজুল ইসলামকে নির্বাহী মুহতামিম মনোনীত করা হয়েছে। এছাড়াও সভায় শর্তসাপেক্ষে মাওলানা আবদুর রাজ্জাককে মজলিসে এলমির সদস্য হিসেবে মনোনয়ন প্রদান এবং শিক্ষক হিসেবে পূনর্বহালের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমলের সভাপতিত্বে মজলিসে শুরার অধিবেশনে প্রধান অতিথি ছিলেন, আঞ্জুমানে ইত্তেহাদুল মাদারিস (বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড) এর মহাসচিব আল্লামা আব্দুল হালিম বোখারী।

উল্লেখ্য গত ২০ মে মাদ্রাসার সৃষ্ট বিরোধ নিষ্পত্তির লক্ষ্যে সাংসদ কমলের উদ্যোগে ৫ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি দীর্ঘদিন সার্বিক তদন্ত শেষে এ মজলিসে শূরা অধিবেশনে ওই তদন্তের প্রতিবেদন প্রকাশ করেন।

তদন্ত কমিটির আহবায়ক মাওলানা মূফতি মুর্শিদুল আলম চৌধুরী প্রতিবেদনে জানান, মাদ্রাসার বর্তমান মুহতামিম মাওলানা সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষ ২২টি অভিযোগ দায়ের করলেও এর কোনটিরও সত্যতা পাওয়া যায়নি। তবে তদন্ত কমিটি মাদ্রাসা পরিচালনার বৃহত্তর স্বার্থে দ্বন্ধ নিরসন করে সমঝোতার ভিত্তিকে মাদ্রাসা পরিচালনার পরামর্শ প্রদান করেন।

মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা সিরাজুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, ঢাকা ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বসুন্ধরা’র পরিচালক মাওলানা মূফতি আরশাদ রহমানী, অফিসেরচর ইসলামিয়া এমদাদিয়া কাছেমুল উলুম মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা মূফতি মুর্শিদুল আলম চৌধুরী, রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল খায়ের, চাকমারকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম সিকদার, পোকখালী মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা মোকতার আহমদ, দারুল মা’আরিফ চট্টগ্রাম এর সহকারি পরিচালক মাওলানা ফুরকানুল্লাহ খলীল, রামু জামেয়াতুল উলুম মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা হাফেজ শামসুল হক, জোয়ারিয়ানালা এমদাদুল উলুম মাদ্রাসার সহকারি পরিচালক মাওলানা হাফেজ আবদুল হক, জামেয়া ইসলামিয়া টেকনাফ এর মুহতামিম মাওলানা মূফতি কিফায়তুল্লাহ শফিক, ধাওনখালী মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা মোহাম্মদ মুসলিম, রাজারকুল আজিজুল উলুম মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা মোহছেন শরীফ, মাওলানা ইয়াছিন হাবিব, কক্সবাজার রহমানিয়া মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা মোহাম্মদ সোলাইমান কাসেমী, কক্সবাজার জামেয়া ইসলামিয়া উমিদিয়া মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা আলী হাসান চৌধুরী, মাওলানা এমদাদুল্লাহ, মাওলানা কাজী মোহাম্মদ আলী, মাওলানা মো. হারুন, মাওলানা আবদুল মুনয়িম, মাওলানা অলি উল্লাহ, মাওলানা কামাল হোছাইন, মাওলানা শাহেদ নুর, মাওলানা আবদুল গফুর, মাওলানা এরশাদুল্লাহ, মাওলানা আবদুল্লাহ, মাওলানা হাফেজ আতিকুল্লাহ, মাওলানা হাফেজ আবদুল গফুর, মাওলানা হাফেজ ছালামতুল্লাহ, রামু থানার এসআই সোহেল রানা, ইউপি সদস্য ছৈয়দ নুর, সমাজসেবক মো. রফিক, নুরুল আলম, জালাল আহমদ প্রমূখ।

সভায় বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের মহাসচিব আল্লামা আব্দুল হালিম বোখারী বলেন, চাকমারকুল মাদ্রাসা এতদাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহি দ্বীনি প্রতিষ্ঠান। যারা এ প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করে গেছেন, তাদের উত্তরসূরীদের প্রতিষ্ঠানকে স্বচ্ছতার সাথে পরিচালনায় ভূমিকা রাখতে হবে। এ জন্য পরিচালনা নিয়ে সৃষ্ট বিরোধ বিচারের মাধ্যমে না করে সমঝোতার মাধ্যমে সমাধান করা হয়েছে।

সভাপতির বক্তব্যে কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল বলেন, এ মাদ্রাসার মাধ্যমে চাকমারকুলের সিকদার পরিবারের ঐতিহ্য ও সুনাম জড়িয়ে আছে। এ ঐতিহ্য ধরে রাখতে হলে পরিবারের সদস্যদের দ্বিধা-বিভক্তি পরিহার করে মাদ্রাসার কল্যাণে নিবেদিত হতে হবে।